বিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধনে এমপি জাফর আলম

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আধুনিকায়নে অবকাঠামোগত উন্নয়ন নিশ্চিত করা হবে

fec-image

কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ জাফর আলমের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির আলোকে গেল একবছরে কক্সবাজার শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের অর্থায়নে প্রায় ৭০ কোটি টাকা বরাদ্দের বিপরীতে চলতি অর্থবছর চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলার ২৯টি স্কুল ও মাদ্রাসার অবকাঠামোগত উন্নয়ন কাজ পুরোদমে শুরু হয়েছে।

জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার শিক্ষাখাতের অগ্রগতি নিশ্চিতে দুই উপজেলার এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবকাঠামোগত উন্নয়নে উল্লেখিত পরিমাণ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে।

বর্তমানে কক্সবাজার শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনে চকরিয়া উপজেলার পহরচাঁদা ফাজিল মাদ্রাসা, খুটাখালী তমিজিয়া ফাজিল মাদ্রাসা, ডুলাহাজারা আরবিয়া মারুফিয়া দাখিল মাদ্রাসা, কাকারা তাজুল উলুম দাখিল মাদ্রাসা, ঢেমুশিয়া দাখিল মাদ্রাসাসহ ৬টি মাদরাসা এবং চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলার আরো ১১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়েও চার তলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবন নির্মাণকাজ শুরু করা হয়েছে।

অপরদিকে আরো ১২ টি মাদ্রাসা ও স্কুলের উর্ধমূখী সম্প্রসারণ এবং সেকেন্ডারী স্কুল ইমপ্লিমেন্টেশন প্রকল্পের আওতায় প্রায় ৭০ কোটি টাকা ব্যয়ে উন্নয়ন কাজ চলছে।

সর্বশেষ শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের অর্থায়নে ৩ কোটি ৩০ লাখ টাকা বরাদ্দে চারতলা বিশিষ্ট একটি নতুন একাডেমিক ভবন পেয়েছেন চকরিয়া উপজেলার সাহারবিল বিএমএস উচ্চ বিদ্যালয়।

শনিবার বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে একাডেমিক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উদ্বোধন করেছেন চকরিয়া-পেকুয়া আসনের এমপি ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম এমপি।

একাডেমিক ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধনী উপলক্ষে সাহারবিল বিএমএস উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্যোগে এদিন আয়োজন করা হয় সুধী সমাবেশের। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ ছিলেন চকরিয়া বর্ণমালা একাডেমি স্কুলের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য আমিনুর রশিদ দুলাল, সাহারবিল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিদ্যালয় কমিটির সভাপতি মহসিন বাবুল প্রমুখ।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে বিদ্যালয় কমিটির সদস্য, শিক্ষকমন্ডলী, শিক্ষার্থী, অভিভাবক, আওয়ামীলীগ সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এমপি জাফর আলম বলেছেন, নির্বাচনের সময় চকরিয়া-পেকুয়াবাসিকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতের পরশে উন্নয়নের মাধ্যমে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলাকে একটি আধুনিক নগরী হিসেবে গড়ে তুলবো।

আমার স্বপ্ন আছে পরিকল্পিত উন্নয়নে চকরিয়া-পেকুয়াকে ঢেলে সাজানো হবে। বর্তমানে দুই উপজেলার প্রতিটি উন্নয়নের অভিন্ন কর্মসুচি চলছে। এসব উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শেষহলে বদলে যাবে এলাকার দৃশ্যপট। উন্নয়ন কাজ এগিয়ে নিতে জনগনের সহযোগিতা চাই।

তিনি বলেন, চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার প্রতিটি জনপদে উন্নয়নের পাশাপাশি সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আধুনিকায়নে অবকাঠামোগত উন্নয়ন নিশ্চিত করা হবে। একটি কথা বলতে চাই, পরিকল্পিত উন্নয়নে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আধুনিক হলে, শিক্ষার সুন্দর পরিবেশ নিশ্চিত হলে দেশগড়ার কারিগর নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীরাও হবেন স্মার্ট এবং মেধাবী। সেই কর্মসুচির আলোকে সরকারি তরফ থেকে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ নিশ্চিতের মাধ্যমে ইতোমধ্যে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উন্নয়ন কর্মকা- শুরু হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: কক্সবাজার, চকরিয়া, শিক্ষা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen − 5 =

আরও পড়ুন