গুইমারায় বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দানোৎসব পালন

fec-image

খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাংসদ ও শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেছেন, অহিংসা পরম ধর্ম, জীব হত্যা মহা পাপ, বৌদ্ধের এমন অমর বানীকে বুকে লালন করে বৌদ্ধধর্মাবলম্বীরা। তাই জগতের সকল প্রাণী ও প্রকৃতির কল্যাণ কামনায় যথাযথ ধর্মীয় নিয়ম অনুযায়ী বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ধর্মাবলম্বীরা মাসব্যাপী বিভিন্ন বিহারে দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দানোৎসব পালন করে।

শনিবার (২১ নভেম্বর) সকাল থেকে খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ সদস্য মংসুইপ্রু চৌধুরী (অপু) ও স্থানীয় দায়ক দায়িকাদের আয়োজনে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও গুইমারা উপজেলার সাইংগুলি পাড়া শাষনা বৌদ্ধ বিহারে অনুষ্ঠিত কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসকল কথা বলেন।

এই উপলক্ষে ইউপি চেয়ারম্যান ও চিবর অনুষ্ঠানের আহবায়ক চাইথোয়াই চৌধুরীর সার্বিক পরিচালনায় দিনব্যাপী ধর্মীয় কর্মসূচির মধ্যে ছিল ভিক্ষু সংঘের প্রাতরাশ, পরম করুণাময় তথাগত সম্যক সম্বুদ্ধের পূজা ও শীল গ্রহণসহ উপাসক উপাসিকা কর্তৃক পূজনীয় ভিক্ষুদের উদ্দেশ্য কঠিন চীবর দান, পরম করুণাময় গৌতম বুদ্ধের অহিংস ধর্ম নিয়ে আলোচনা সভা, প্রদীপ পূজা ও সমবেত প্রার্থনা করা।

বৌদ্ধ ধর্মপ্রাণ উপাসক ও উপাসিকারা বছর ঘুরে দানোত্তম শুভ এই কঠিন চীবর দানের এই দিনটির জন্য অপেক্ষায় থাকেন।

উল্লেখ্য, দেশব্যাপী পবিত্র প্রভারণা বা আশ্বিনি পূর্ণিমার পরদিন থেকেই দেশের সবগুলো বৌদ্ধ বিহারে এই কঠিন চীবর দানোৎসব অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। এমন দানোৎসবে অংশ নিতে পেরে খুশী আগত উপাসক উপাসিকারা।

ভিক্ষুদের চীবর দান দিতে আসা উপাসক খাগড়াছড়ির সাংসদ ও শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা ও তাঁর সহধর্মিনী মল্লিকা ত্রিপুরা, জেলা আয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী, রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদিপ কারবারী, গুইমারা উপজেলা চেয়ারম্যান উশ্যেপ্রু মারমা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার তুষার আহমেদ, ওসি মিজানুর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমা, রেদাক মারমা এবং জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দসহ স্থানীয় কয়েক হাজার উপাসক- উপাসিকারা দেশ ও বিদেশের সবাইকে এই কঠিন চীবর দানের পূণ্য দান ও শুভেচ্ছা জানান।

এসময়, প্রধান ধর্মদেশক হিসেবে খাগড়াছড়ি মং সার্কেল ভিক্ষুসংঘের মহামান্য সংঘরাজ তৈকর্মা পাড়া চুলামনি আনন্দ বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ ভদন্ত উ: ওয়েংন্না মহাস্থবির এবং প্রধান অতিথি ছিলেন, কালাপানি বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ আগ্গাম্মা মহাথেরসহ বিভিন্ন বিহার থেকে আগত মহাথের অধ্যক্ষরা উপস্থিত ধর্মপ্রাণ উপাসক ও উপাসিকাদের ধর্ম দেশনা প্রদান করেন। পরে সমবেত প্রার্থনায় আগত ভিক্ষুসংঘ বিশ্ব থেকে করোনা থেকে মুক্তি দেশ ও দেশের সকল মানুষের কল্যাণে প্রার্থণা করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: করোনা, কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two + nineteen =

আরও পড়ুন