চকরিয়ায় নতুন আইসোলেশন ইউনিট পর্যবেক্ষণ করলেন নবাগত ইউএনও 

fec-image

চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নবনির্মিত ভবনে স্থাপিত করোনা সংক্রমণের অস্থায়ী আইশোলেশন ইউনিটের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেছেন নবাগত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ সামসুল তাবরীজ।

মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) দুপুরে ইউএনও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নতুন ভবনে স্থাপিত অস্থায়ী আইসোলেশন ইউনিট পরির্দশন করেন।

পরে তিনি হাসপাতালের বর্তমান ভবন এবং চিকিৎসা সংক্রান্ত সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শন করে পরবর্তীতে তিনি পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষে গরিব ও হতদরিদ্র মানুষের মাঝে পুষ্টিকর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ শাহবাজের সভাপতিত্বে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নবাগত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ সামসুল তাবরীজ।

এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদের নারী ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন হক জেসি চৌধুরী। ওইসময় হাসপাতালের সকল বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক, নার্সসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, গত মার্চ মাসের ১০ তারিখ কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন জেলা করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত কমিটির সভায় ‘করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ৫০ শয্যা করে দুইটি হাসপাতালকে করোনা আইসোলেশন ইউনিট ঘোষণা করেন। তৎমধ্যে একটি ইউনিট চকরিয়া সরকারি হাসপাতালের নতুন ভবনে ও অপরটি রামু উপজেলা হাসপাতালে একটি ভবনকে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের জন্য নির্ধারণ হয়েছে বলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ শাহবাজ। দুটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভবনে ১০০ শয্যা আইসোলেশন ইউনিট করা হয়েছে। সেইজন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য সাপোর্ট।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আইসোলেশন, ইউএনও, চকরিয়ায়
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 + 7 =

আরও পড়ুন