থানচিতে জাতীয় জলাতঙ্ক নির্মূল কর্মসূচি 

fec-image

জাতীয় জলাতঙ্ক নির্মূল কর্মসূচীর আওতায় ২০২৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে জলাতঙ্ক নির্মূলের লক্ষ্যে বান্দরবান জেলায় ব্যাপকহারে কুকুরকে টিকাদান (এমডিভি) কার্যক্রম বিষয়ে  থানচিতে অবহিতকরণ সভার আয়োজন করা হয়েছে।

২৭ জানুয়ারি (বৃহস্পতিবার) সকাল ১০টায় উপজেলা স্বস্থ্য কমপ্লেক্স সভাকক্ষে উপজেলা স্থাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মো. ওয়াহিদুজ্জামান মুরাদ সভাপতিত্বে জাতীয় জলাতঙ্ক নির্মূল কর্মসূচির আওয়তায় এই উপজেলায় অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আতাউল গনি ওসমানী। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, থানচি থানা সহকারী কর্মকর্তা শাওন, থানচি উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি মংবোওয়াংচিং মারমা অনুপম ও মেডিক্যাল অফিসার মো. নূরুল আলম প্রমুখ।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগ, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে দেশব্যাপী ব্যাপকহারে কুকুরের জলাতঙ্ক প্রতিষেধক টিকাদান (এমডিভি) কার্যক্রমের আওতায় এ পর্যন্ত দেশের ৬২টি জেলায় সকল উপজেলায় ১ম রাউন্ড গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, মাদারীপুর, পাবনা ও নীলফামারী জেলায়। ২য় রাউন্ড সমগ্র গাইবান্ধা ও সিরাজগঞ্জ জেলায় ৩য় রাউন্ড টিকাদান কার্যক্রমের আওতায় প্রায় সতের লক্ষ আশি হাজার কুকুরকে জলাতঙ্কের প্রতিষেধক কর্মসূচীর আওতায় টিকা প্রদান করা হয়েছে।

ডাঃ ওয়াহিদুজ্জামান মুরাদ বলেন, জলাতঙ্ক জীবানুবাহী প্রাণি দ্ধারা আক্রান্ত হলে ক্যাটেগরি অনুয়ায়ী এর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ক্যাটেগরি ১ লেহন (চাটা): শরিরের উপর দিয়ে হেঁটে যাওয়া। মনে মনে ভয় লাগবে, সন্দেহ হবে। সন্দেহ দূর করার জন্য চাটার বা হেঁটে যাওয়ার স্থানে সাবান পানি দিতে হবে। যদি না জ্বলতে থাকে তাহলে প্রতিরোধের জন্য শুধু ওয়াশিং দিতে হবে, ভ্যাকসিন দিতে হবে না। যদি জ্বলতে থাকে ( জ্বালা পোড়া) তাহলে বুঝতে হবে চামড়াতে ক্ষত হয়েছে। ভাইরাস ( যদি লালায় বা নখ থেকে থাকে) ক্ষত দিয়ে ভিতরে ঢুকে যেতে পারে। প্রতিরোধের জন্য ওয়াশিং এবং ভ্যাকসিন দিতে হবে।

ক্যাটেগরি ২, আঁচড় (যত ছোট বা সামান্যই হোক) এবং রক্ত গড়িয়ে যদি না পড়ে তাহলে  ওয়াশিং এবং ভ্যাকসিন দিতে হবে। ক্যাটেগরি ৩, কামড় বা আঁচড় যেখানে রক্ত বের হয়ে গড়িয়ে পড়বে সেই ক্ষেত্রে ওয়াশিং, ভ্যাকসিন এবং আরআইজি দিতে হবে।

প্রধান অতিথি বলেন, জাতীয় জলাতঙ্ক নির্মূল এই কর্মসূচি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং খুবই ভাল বিষয়। কিন্তু এই জলাতঙ্ক প্রতিরোধ টিকাদান কর্মসূচি সঠিকভাবে বাস্তবায়ন এই এলাকার জন্য অত্যন্ত জরুরী ও কষ্টসাধ্যও বটে। যার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সকল স্তরে জনগনের সহযোগিতা নিয়ে এই কাজ সম্পন্ন করার জন্য তিনি আহ্বান জানান।

অবহিতকরণ সভায় এমডিভি কার্যক্রমের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, টিকাদান কর্মসূচীর সদস্য, সাংবাদিক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

7 − 2 =

আরও পড়ুন