নাইক্ষ্যংছড়ির ৩টি ইটভাটা গুঁড়িয়ে দিয়েছে প্রশাসন: আড়াই লাখ টাকা জরিমানা

fec-image

পার্বত্য বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলোর ঘুমধুম ও সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ৩টি অনুমোদন বিহীন ইটভাটা গুড়িয়ে দিয়েছে জেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর। বৃহস্পতিবার(৫মার্চ) সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. কামরুল হোসেন চৌধুরী।

অভিযান শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. কামরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন, ২০১৩ (সংশোধিত-২০১৯) এর ৪,৬ ও ৮ ধারা লঙ্ঘনের দায়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ঘুমধুমের এএসবি ব্রিকস, মো. আসিফের ইউআরএম ব্রিকস, সোনাইছড়ির মারিগ্যাপাড়া প্রাইমারী স্কুল সংলগ্ন মনঞ্জুর আলমের মালিকাধীন এমএফজি ব্রিকস ফিল্ড ৩টি সম্পুর্ণ ভাবে এস্কাভেটর দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। অভিযানের সময় ভ্রাম্যমান আদালত এএসবি ব্রিকস ফিল্ডের মালিক আবুল কালামকে আড়াই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। বাকী ২টি ইটভাটার মালিকের বিরুদ্ধে নিয়মিত পরিবেশ আইনে মামলা রুজু করা হবে বলেও তিনি জানান।

অভিযানকালে বান্দরবান পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক একেএম শামিউল আলম খুরশি বলেন, ইটভাটাগুলি পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে পরিবেশগত ছাড়পত্র, জেলা প্রশাসন হতে ইট পোড়ানো লাইসেন্স ব্যতীত পরিচালনা করা হচ্ছিল। এছাড়াও ইটভাটা গুলো লোকালয়ে এবং প্রাইমারি স্কুলের সাথে লাগোয়া। পরিবেশের ক্ষতিকারক ইটভাটা গুলো ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন, ২০১৩ অনুযায়ী অবস্থান গ্রহণযোগ্য নয়। তাই এসব ইটভাটা গুলোর বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, পর্যায়ক্রমে সকল অবৈধ ইটভাটা, পাহাড় কাটাসহ সকল ধরনের পরিবেশগত ক্ষতি বন্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

তিনি আরও বলেন, অভিযানের সময় ৩টি ইটভাটার ড্রাম চিমনি ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে এবং প্রস্তুতকৃত কাঁচা ইট গুঁড়িয়ে দিয়ে ফায়ার সার্ভিসের মাধ্যমে আগুন নিভিয়ে দেওয়া হয়েছে। যাতে ভবিষ্যতে আর এধরনের ভাটা স্থাপন করতে না পারে।

অভিযানকালে উপস্থিত ছিলেন, বান্দরবান জেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাসুদুর রহমান চৌধুরী, বান্দরবান পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিদর্শক আবদুস সালাম, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্যরা।

অভিযোগ উঠেছে, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুমসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে লোকালয়ে, বনঘেষে, বিদ্যালয়ে পাশে গড়ে উঠেছে বেশ কয়কয়েকটি ইটভাটা। যেসব ইটভাটার কারনে এলাকার পরিবেশ মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। আর বিদ্যালয় সংলগ্ন ইটভাটা তৈরি করায় স্কুল পড়ুয়া ছাত্র/ছাত্রীদের স্বাস্থ্য ও পরিবেশগত ক্ষতি হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: ইটভাটা, জরিমানা, নাইক্ষ্যংছড়ির
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × four =

আরও পড়ুন