“ ইয়াবা ব্যবসায়ীরা গত এক সপ্তাহ ধরে মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী দক্ষিন রুমালিয়ারছড়া এবিসি ঘোনার আলী আহমদের পুত্র আবদুল জব্বার (৩০) কে পুলিশ অস্ত্রসহ আটক করলে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে এলাকায় প্রকাশ্যে অবস্থান করে অবৈধ অস্ত্র থেকে গুলি ছুঁড়ে জনমনে ত্রাসেরও সৃষ্টি করছে।”

রুমালিয়ারছড়ায় ইয়াবা ব্যবসায়ীদের রাজত্ব

fec-image

কক্সবাজার শহরের রুমালিয়ারছড়া-এবিসি ঘোনা এলাকায় ইয়াবা ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে। স্থানীয় লোকজন উক্ত ইয়াবা ব্যবসা বন্ধে সোচ্চার হওয়ায় তাদেরকে ভয়ভীতি প্রদর্শনের জন্য ইয়াবা ব্যবসায়ীরা এখন সশস্ত্র সন্ত্রাসী জড়ো করে নিয়মিত মহড়া দিচ্ছে।

শুধু তাই নয়, ইয়াবা ব্যবসায়ীরা গত এক সপ্তাহ ধরে মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী দক্ষিন রুমালিয়ারছড়া এবিসি ঘোনার আলী আহমদের পুত্র আবদুল জব্বার (৩০) কে পুলিশ অস্ত্রসহ আটক করলে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে এলাকায় প্রকাশ্যে অবস্থান করে অবৈধ অস্ত্র থেকে গুলি ছুঁড়ে জনমনে ত্রাসেরও সৃষ্টি করছে। এতে মামলার বাদী ও হামলার শিকার জাহেদ হোসেন ও তার ছেলে আবদুল জলিল চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে সাংবাদিকদের জানান।

মামলা সুত্রে জানা গেছে, গত ২২ জুন দুপুর থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত শহরের দক্ষিন রুমালিয়ারছড়া এলাকায় চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী আবদুল জাব্বার নিরীহ ব্যক্তি এবিসি ঘোনা এলাকার আবদুল জলিল ও তার ছেলে জাহেদ হোসেনকে ব্যাপক মারধর করে। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে পিতা-পুত্র। খবর পেয়ে এলাকার লোকজন তাদের উদ্ধার করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

এলাকার লোকজন এ ঘটনা পুলিশকে খবর দিলে সদর মডেল থানার এসআই রাজিব চন্দ্র পোদ্দার এলাকার লোকজনের সহায়তায় ইয়াবা ব্যবসায়ী আবদুল জব্বার ও তার মা জাহেদা বেগম কে আটক করে। পরে তাদের স্বীকারোত্তি মতে জব্বারের বসতবাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় একটি অবৈধ দেশিয় তৈরি অস্ত্র।

এঘটনায় এসআই রাজিব চন্দ্র পোদ্দার বাদী হয়ে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং-৭৮, জিআর-৬৯৪/১৯। তারিখ-২৩/০৬/১৯ ইং। ধারা ৩৪১/৩৪৮/৩২৩/৩২৪/৩২৬/৩০৭/৩৭৯/৫০৬ পেনাল কোড রুজু করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত আসামি আবদুল জাব্বারের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় আরো মামলা রয়েছে। যার মধ্যে এফ আই আর নং-৮৪/৩০৫, তারিখ-২৬ এপ্রিল ২০১৮, ১৯৭৮ সালের অস্ত্র আইন মামলা। এফ আই আর নং-৮৩/৩০৪ তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০১৮, ধারা ৩৯৯/৪০২ পেনাল কোড-৩। এফ আই আর নং-৩৩, ৯ এপ্রিল ২০১৩, জিআর নং-২৬৮/১৩ (সদর), ৯ এপ্রিল ২০১৩, ধারা ১৪৩/৩৪১/৩৬৪-ক-৩০২/৩৭৯/৩৪ পেনাল কোড এ মামলায় মো. আবদুল জাব্বার এজাহারভুক্ত আসামি।

অপরদিকে আদুল জলিল ও তার ছেলে জাহেদ হোসেন কে হামলার ঘটনায় জলিলের মেয়ে সেলিনা আক্তার বাদী হয়ে ইয়াবা ব্যবসায়ী আবদুল জাব্বার ও তার ৬ সহযোগীর বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা ব্যবসা ও সেবন করে আসছে অভিযুক্ত আব্দুল জাব্বার ও তার সহযোগীরা। এতে তাদের বাড়িতে ইয়াবার আসর না বসাতে বাধা দেয় আবদুল জলিল ও জাহেদ হোসেন। পরক্ষণে ক্ষিপ্ত হয়ে ১১ জুন দুপুরে ইয়াবা ব্যবসায়ী আবদুল জাব্বারের সাথে  কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে ইয়াবা ব্যবসায়ী আদুল জাব্বার হত্যার হুমকি দেয়।

মামলার বাদী সেলিনা আক্তার বলেন, ইয়াবা সেবন ও পাচারে বাধা দেয়ায় ২২ জুন দুপুরে আমার ছোট ভাই জাহেদ ও পিতা আব্দুল জলিল কাজের উদ্দেশ্যে লিংকরোড যাওয়ার পথে পুর্ব থেকে ওঁৎপেতে থাকা আসামীরা কিছু বুঝে উঠার আগেই কিল, ঘুষি, লাথি মেরে গুরুতর আহত করে। এঘটনা শোনার পর আমার মা ও আত্বীয়স্বজনরা এগিয়ে আসলে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা আমার বাবার পকেটে থাকা ১৫ হাজার টাকা ও ব্যবহ্নত দুটি মোবাইল নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়।

আহতদের উদ্ধার করে দ্রুত কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করলে গুরুতর আহত আবদুল জলিলের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার করে। বর্তমানে তিনি চমেকে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এঘটনায় বসতগৃহে অনাধিকার প্রবেশ ও হত্যা চেষ্টায় এজাহারনামীয় ৭ জনের বিরুদ্ধে সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নং-৭৮। ২৩/০৬/১৯ইং। ধারা-৩৪১/৪৪৮/৩২৩/৩২৪/৩২৬/৩৭৯/৫০৬/৩৪ পেনাল কোড-১৮৬০। মামলার আসামীরা হল, এবিসি ঘোনার আলী মিস্ত্রির ছেলে আবদুল জাব্বার (২৮), একই এলাকার ছালেহ আহমদ প্রকাশ বচুর ছেলে মো: জসিম (৩০), আলী মিস্ত্রির ছেলে মো: ইমরান (১৯), মো: আরফান (১৯), আলী মিস্ত্রির স্ত্রী জাহেদা (৪২), হোছন মিস্ত্রির ছেলে মো: আলী (৪৫) ও আবদুল জাব্বারের স্ত্রী রুজিনা আক্তার (২৩)।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার (ওসি) ফরিদ উদ্দিন খন্দকার বলেন, রুমালিয়ারছড়া এলাকার জাব্বার সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ব্যবসা কার্যক্রম করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। তাকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকী সহযোগী ও তার ইয়াবার আস্তানা গুড়িয়ে দিতে প্রতিদিনই অভিযান অব্যাহত আছে।

জানা যায়, কক্সবাজার শহরের রুমালিয়ারছড়া কুখ্যাত ইয়াবা ব্যবসায়ী জাব্বার ও অপরাপর সহযোগীরা দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় ইয়াবাসহ নানা মাদকদ্রব্য বিক্রি করে আসছে। এলাকাবাসী ও প্রশাসন বারবার তার আস্তানা গুঁড়িয়ে দিলেও সে নতুন করে আস্তানা গড়ে তুলে। সম্প্রতি সে বেপরোয়া হয়ে উঠলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। কিন্তু সেই আস্তানা এখনও সহযোগীরা পরিচালনা করে আসছে। এই আস্তানাটি আতঙ্কের স্থান হয়ে ওঠেছে। এখানে শহরের মাদকসেবী সন্ত্রাসীরা জড়ো হয়ে ইয়াবা ব্যবসা বিরোধীদের হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। এমনকি গত এক সপ্তাহ ধরে সন্ত্রাসীরা মধ্যরাতে গুলীবর্ষণ করে এলাকায় ত্রাসের সৃষ্টি করেছে। এনিয়ে এলাকায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করা হচ্ছে। এবং মামলার বাদিকে প্রতিনিয়ত হুমকি দেয়া হচ্ছে।

রুমালিয়ারছড়া সচেতন এক ব্যক্তি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ইয়াবা ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের তৎপরতার কারণে এলাকায় ভাল মানুষের বসবাস কঠিন হয়ে পড়েছে। সমাজের নেতা নামধারীরাই এসব সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছে। বর্তমানে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। সরকার ও পুলিশ কি এদেরকে অবৈধ অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসার লাইসেন্স দিয়েছে? না হলে তাদেরকে ধরছে না কেন?

এলাকাবাসী অবিলম্বে রুমালিয়ারছড়া, এবিসিঘোনা, সমিতিবাজার এলাকা থেকে সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আস্তানা ধ্বংসের দাবি জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: ইয়াবা, রাজত্ব, রুমালিয়ারছড়ায়
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

14 + four =

আরও পড়ুন