কাপ্তাই হ্রদে কচুরিপানার তীব্র যানজট, বিপাকে পরীক্ষার্থীরা

fec-image

দেখে মনে হবে সোনালি সবুজের মাঠ। আসলে এটা কাপ্তাই হ্রদে কচুরিপানার তীব্র যানজট। এই যানজটের কারণে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছে এইচএসসি পরীক্ষার্থীর।

রবিবার (৬ নভেম্বর) সকাল ১১টা থেকে সারাদেশে একযোগে শুরু হয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা। কিন্ত বিধিবাম প্রতি বছরের ন্যায় এবারও কাপ্তাই হ্রদে ধেয়ে আসছে কচুরিপানার যানজট।

মাত্র ৩ তিন মিনিটের গন্তব্য জায়গা পৌঁছাতে সময় লাগছে তিন ঘণ্টা। আবার মাঝপথে ইঞ্জিন চালিত বোট বা লঞ্চের তেল ফুরিয়ে বিপাকে পড়ছে নৌযাত্রীরা। কেউ কেউ আবার কচুরিপানা যানজট পাড়ি দিতে গিয়ে ইঞ্জিনের পাখা ভেঙ্গে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

গত একসপ্তাহ যাবৎ কাপ্তাই হ্রদের বিভিন্ন এলাকা হতে কচুরিপানা আপস্টিম যেটিগেটে এসে জড়ো হচ্ছে । যার ফলে আইল্যান্ড এলাকা হতে জেটিঘাট ২-৩ মিনিটের জায়গায় পৌঁছাতে নৌযানের সময় লাগছে ২-৩ ঘণ্টা।

হরিণছড়ার ইউপি সদস্য অংসাচিং মারমা, নবীন কুমার তনঞ্চ্যা ও জেলে পাড়ার উজ্জল দাশ জানান, কচুরিপানার তীব্র যানজটের ফলে পরীক্ষার্থীদের নিয়ে সঠিক সময় পৌঁছানো কঠিন হয়ে পড়েছে। সামনে এ যানজট অপসরণ করা না হলে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা দেওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়বে অভিভাবকরা এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছে।

কাপ্তাই মাছ ব্যবসায়ী দিদারুল আলম জানান, কচুরিপানার তীব্র যানজটের ফলে বাজারে মাছ সঠিক সময় পৌঁছাতে না পারায় মাছ পচে লাখ টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এছাড়া সরকারি-বেসরকারি এবং বিভিন্ন সংস্থার লোকজন, কাপ্তাই, বিলাইছড়ি, জুছড়াছড়ি ও বরকলসহ বিভিন্ন এলাকায় সঠিক সময় পৌঁছাতে পারছে না। যার ফলে ব্যবসাসহ বিভিন্ন কিছুতেই ধস নেমেছে।

কাপ্তাই মৎস্য উপকেন্দ্র শাখা ব্যবস্থাপক মাসুদ আলম জানান, মাছ পচনশীল তা বিভিন্ন উপজেলা হতে সঠিক সময়ে পৌঁছাতে না পারায় ব্যবসায়ী এবং সরকারের ব্যাপক লস হচ্ছে। তিনি কচুরিপানার তীব্র যানজট অপসারণের দাবি জানান।

৪নং কাপ্তাই ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আব্দুল লতিফ জানান, কচুরিপানা এখন জাতীয় সমস্যার মত দেখা দিয়েছে। প্রতি বছর এ কচুরিপানা যানজট লেগেই থাকে। যারফলে ব্যবসাসহ সব কিছুতেই ধস নামে।

তিনি আরো বলেন, কর্ণফুলী পানি বিদ্যুৎকেন্দ্র ব্যবস্থাপকে বিষয়টি জানিয়েছেন এবং তাদের মেশিন দিয়ে কচুরিপানা যানজট অপসরণের দাবি জানান। রবিবার হতে বিউবো কাজ করবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × five =

আরও পড়ুন