চকরিয়ায় সমিতির পদ নিয়ে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে জখম, আহত ২

fec-image

চকরিয়ায় বদরখালী সমবায় কৃষি ও উপনিবেশ সমিতির মেম্বারশীপ (সদস্য পদ) নিয়ে পারিবারিক ও পূর্ব শত্রুতার জেরে এক আড়তদার ব্যবসায়ীকে একদল সন্ত্রাসী বাড়ি ফেরার পথে হামলা চালিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় ব্যবসায়ীর কাছে থাকা নগদ ১ লাখ ২৫ হাজার থাকা ছিনিয়ে নেয়া হয়। স্থানীয়রা এগিয়ে এসে ঘটনাস্থল থেকে আহত ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া যান। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

এ ঘটনায় চকরিয়া থানায় ৫ জনের নাম উল্লেখপূর্বক আরো ৩ থেকে ৪ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে শনিবার (১৩ আগস্ট) রাতে থানায় একটি এজাহার জমা দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) রাত সাড়ে ১১টার দিকে বদরখালী ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের কুতুবদিয়া পাড়াস্থ আহত ব্যবসায়ীর চলাচল রাস্তায় এ ঘটনা ঘটে।
সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত ব্যক্তিরা হলেন, ওই এলাকার আবু ছৈয়দের ছেলে আড়তদার ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম (৫৫), তার স্ত্রী জাহেদা বেগম (৪৫), তাদের ছেলে মো. হাসান (১৭)।

থানায় দায়েরকৃত এজাহার সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বদরখালী ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের কুতুবদিয়া পাড়া এলাকার আবু ছৈয়দের ছেলে আড়তদার ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম ও তার ছেলে মো. সালমান ব্যবসায়ী কাজ শেষে বদরখালী কে.বি জালাল উদ্দিন সড়ক দিয়ে হেঁটে বাড়ি ফিরছিল। পথিমধ্যে কুতুবদিয়া পাড়াস্থ আড়তদার ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম চলাচল রাস্তায় পৌছলে ওই এলাকার মো. মোস্তফা ও মো. শাহজাহানের নেতৃত্বে স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা বদরখালী সমবায় কৃষি ও উপনিবেশ সমিতির মেম্বারশীপ (সভ্য পদ) বিষয় নিয়ে তাদের পথ অবরুদ্ধ করে দেশীয় তৈরি ধারালো অস্ত্র নিয়ে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে হামলা চালায়। এতে আড়তদার ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামকে কুপিয়ে পুরো শরীরে গুরুতর আহত করে তার কাছে থাকা ব্যবসার বিক্রিত নগদ ১ লাখ ২৫ হাজার থাকা ছিনিয়ে নেয়া নেয়।

 তার ও ছেলে সালমানের শোর চিৎকারে পরিবারের লোকজন এগিয়ে আসলে তাদেরকে মারধর করে আহত করা হয়। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় গুরুতর আহত আড়তদার ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম (৫৫) কে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

এ ঘটনায় আহত আড়তদার ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামের ছেলে মো. সালমান বাদী হয়ে শনিবার রাতে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে আরো ৩ থেকে ৪ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে শনিবার রাতে থানায় একটি এজাহার জমা দিয়েছেন।

এ বিষয়ে চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) চন্দন কুমার চক্রবর্তীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঘটনার বিষয়ে থানায় একটি এজাহার দেয়া হয়েছে। এটি মামলা হিসেবে রুজু করা হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আহত, কুপিয়ে জখম, চকরিয়া
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 5 =

আরও পড়ুন