চন্দ্রঘোনা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন

চন্দ্রঘোনায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ

fec-image

১ নম্বর চন্দ্রঘোনা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা পোস্টার ও ব্যানার লাগাতে গিয়ে হামলার স্বীকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার (২৮ মে) স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক জাতীয় ফুটবলার বিপ্লব মারমা তার সমর্থক ও কর্মীর ওপর হামলা করেছে বলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (২৭ মে) প্রতীক বরাদ্দ হওয়ার পর পর তার কর্মী ও সমর্থকরা নির্বাচনী পোস্টার ও ব্যানার লাগাতে যায়। এ সময় প্রতিপক্ষ সরকার সমর্থক দলের ছেলেরা তার ব্যানার, পোস্টার ও ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলে। তার কর্মী আফজাল হোসেন ও ইমাম হোসেনকে মেরে জখম করারও লিখিত অভিযোগ করেন তিনি। মোটরসাইকেল মহড়া করে বারঘোনিয়া, কাটাপাহাড়, কয়লারডিপু, রেশমবাগান তনচংগ্যা পাড়া, কলাবাগান ও থানা ঘাট এলাকায় এসে আমার নির্বাচনী পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলে।

এ বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সরকার দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. আক্তার হোসেন মিলন বলেন, আমি গতকাল (শুক্রবার) রাতে ঢাকায় ছিলাম, আজ সকালে এসেছি। গতকাল শুক্রবার আমার কর্মীরা পোস্টার লাগিয়েছেন বিভিন্ন ওয়ার্ডে। কিন্তু কারো কোন পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন কেউ ছিঁড়ে নাই এবং কাউকে মারধর করে নাই। আমি প্রতিহিংসার রাজনীতি বিশ্বাস করি না। জনগণ যদি ভোট কেন্দ্রে না আসে তাহলে আমরা কাকে নিয়ে নির্বাচন করবো। একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হউক আমার দল আওয়ামী লীগ যেমন প্রত্যাশা করে, তেমনি আমিও চাই জনগণের অংশগ্রহণমূলক একটি সুষ্ঠু নির্বাচন। অভিযোগটি মিথ্য বলে তিনি উল্লেখ করে।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং কর্মকর্তা তানিয়া আক্তার জানান, আজ ( শনিবার) সকালে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর একটি আবেদন করেছেন। এ বিষয়ে নির্বাচনে দায়িত্ব পালনকারী আচরণবিধী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনতাসির জাহানকে অবহিত করা হবে বলে জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: ইউপি নির্বাচন, কাপ্তাই
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen − seventeen =

আরও পড়ুন