বান্দরবানে মরিচের ঝাল নিয়ন্ত্রণহীন, রোজার প্রভাব পড়েছে সবজির বাজারে

bandarban vajitabale 13.7.2013

জমির উদ্দিন, বান্দরবান থেকে: 

রোজার শুরুতেই বান্দরবান সবজি বাজারে প্রভাব পড়েছে। রোজার মাসে মানুষ যেসব সবজি বেশি পছন্দ করে সেগুলোর দাম কয়েকগুণ বেড়েছে। সবজির পাশাপাশি পেঁয়াজ ও কাঁচামরিচের দাম বেড়েই চলছে। কাঁচা মরিচের ঝাল নিয়ন্ত্রহীন গতিতে বেড়ে চললেও মরিচের ঝাল নিয়ন্ত্রনে প্রশাসনের কোন উদ্দ্যোগ নেই। 

কাঁচা মরিচের পাশাপাশি সব চেয়ে বেশি বেড়েছে পেঁয়াজ ও শসার দাম। গত এক সপ্তাহ আগে আমদানি করা যে পেঁয়াজ ২৮ থেকে ৩০ টাকায় পাওয়া যেতো। বর্তমানে ওই পেঁয়াজ ৪৮ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। আবার কোথাও কোথাও ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহে কাঁচা মরিচের দাম ছিল ৯০ থেকে ১০০ টাকা। রমজানের শুরুতেই এর দাম কয়েকগুন বেড়ে হয়েছে ২০০ টাকা প্রতি কেজি। রোজার মাসে ইফতারে চাহিদা বাড়ার কারণে বেগুন ও টমেটোর দাম বেড়েছে কয়েকগুন। গত সপ্তাহে টমেটোর দাম ছিল ৫৫-৬০ টাকা। এ সপ্তাহে দাম বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১৫০-১৬০ টাকা। বেগুন ২০ টাকা থেকে বেড়ে ৩০ টাকা।

এদিকে বাজারে পেঁপে, পটল ও শসা, কচুরলতি,করলা, বরবটি, চিচিঙ্গা, ঝিঙ্গা, গাজর, কাকরোল কেজি প্রতি ৩৫ থেকে ৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আলু ১৮টাকা, লেবু হালি প্রতি ২০ থেকে ২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ধনিয়া পাতা কেজি প্রতি ২০০ টাকা, পুদিনা পাতা আটি প্রতি ১০ থেকে ১৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
বান্দরবান শহরের কাঁচা বাজারে বাজার করতে আসা আরাফাত রহমানে অভিযোগ রমজানকে সমানে রখেই মূলত বাড়ানো হয়েছে প্রায় সকল প্রকার পণ্যের দাম। সরকার রমজানে পণ্যের দাম না বাড়ানোর কথা বলেছে। কিন্তু আমরা তো বাজার করতে এসে উল্টো চিত্র দেখছি। এখনই সব কিছূর দাম অনেক বেড়েছে। বাজারে পণ্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকারের তেমন কোনো পর্যবেক্ষণও নেই বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

একাদিক ভোক্তাদের অভিযোগ স্থানীয় প্রশাসন নিরব ভুমিকা পালন করছে। প্রশাসন নিশ্চুপ থাকায় সবজির ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে তিন চারগুন দাম বৃদ্ধি করে বিক্রি করছে। প্রশাসন দ্রুতপদক্ষেপ নিয়ে সিন্ডিকেট ব্যাবসায়ী আইনের আওতায় আনার দাবী জানিয়েছে ভোক্তারা।

তবে দাম বৃদ্ধির কারণ প্রসঙ্গে বিক্রেতারা বলছেন, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বন্যায় কাঁচা সবজির কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। যার ফলে নিত্য প্রয়োজনীয় সবজির চাহিদার যোগান কম থাকায় দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাইরে থেকে বেশি কাঁচা সবজি জেলা শহরে আসতে পারেনি। এছাড়াও পানি লেগে অনেক মরিচ নষ্ট হয়েছে।  ফলে বাজারে চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কমে যাওয়ায় কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × four =

আরও পড়ুন