রোহিঙ্গা ক্যাম্পও ‘লকডাউন’র আওতায়: আরআরআরসি

fec-image

উখিয়া-টেকনাফে অবস্থিত সকল রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্প কক্সবাজার জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের ঘোষণার মধ্যে লকডাউন হিসাবেই থাকবে। শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি-জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সচিব) মো. মাহবুব আলম তালুকদার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আরআরআরসি (জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সচিব) মো. মাহবুব আলম তালুকদার আরো বলেন, জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অফিসিয়ালি একটি জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করা মানেই ওই জেলার সমগ্র ভৌগলিক এলাকা আপনা-আপনি লকডাউন হয়ে যাওয়া।

কক্সবাজারের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. কামাল হোসেন ৮ এপ্রিল বুধবার কক্সবাজার পুরো জেলাকে লকডাউন ঘোষণার মধ্যেই রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্প গুলো পড়েছে। নতুন করে রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে আলাদা লকডাউন ঘোষণার কোন প্রয়োজন নেই। তাছাড়া জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. কামাল হোসেন তিনি সহ সংশ্লিষ্ট সকল উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাথে পরামর্শ করে কক্সবাজারকে লকডাউন ঘোষণা দিয়েছেন।

আরআরআরসি আরও বলেন, ৩৪টি রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে করোনা ভাইরাস জনিত লকডাউন এর সমস্ত বিধিনিষেধ মেনে চলার জন্য ইতিমধ্যে আরআরআরসি অফিস থেকে সিআইসিসহ সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্প গুলোতে আগে থেকেই আনঅফিশিয়ালি অনেকটা লকডাউনের মতোই নিয়ন্ত্রিত ও সীমিত আকারে কার্যক্রম ছিলো।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন ফেসবুক পেইজে স্ট্যাটাস দিয়ে জানান, ‘জনস্বার্থে কক্সবাজারকে লকডাউন করা হলো। এখন থেকে এ জেলায় সকল আগমন ও বর্হিগমন নিষিদ্ধ। আদেশ অমান্য করলে কঠোর ব্যবস্থা’।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আরআরআরসি, রোহিঙ্গা, লকডাউন
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 1 =

আরও পড়ুন