সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের নামে রাস্তার ইট তুলে নিয়ে গেছে এলজিইডির ঠিকাদার

fec-image

সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের নামে তিন মাসে আগে রাস্তার ইট তুলে নিয়ে গেছে এলজিইডির ঠিকাদার। এ কারণে সড়ক দিয়ে গাড়ি চলাচল ও গ্রামবাসীদের চলাচলে দুর্ভোগের অন্ত নেই। এলজিইডির দায়িত্বশীল কর্তাদের ও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারকে ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার ও এলাকাবাসীর পক্ষে বারবার তাগাদা দিলেও কাজ হয়নি। এ ঘটনা ঘটেছে বান্দরবান পার্বত্য জেলার আলীকদম উপজেলার সদর ইউনিয়নের উত্তর পালং পাড়ায়।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, এলজিইডি কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন উপজেলা শহর (নন-মিউনিসিপ্যাল) মাস্টার প্ল্যান প্রণয়ন ও মৌলিক অবকাঠামো উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় গত ২০২১-২০২২ অর্থবছরে আলীকদম সদর ইউনিয়নে মুরুং কমপ্লেক্স সড়ক ও উত্তর পালং পাড়া সড়ক সংস্কারে বান্দরবান এলজিইডি থেকে ২ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মার্মা এন্টারপ্রাইজের পক্ষে কাজ বাস্তবায়নে নিয়োজিত হন ঠিকাদার শাহাদত।

গত অর্থ বছরের শেষের দিকে, সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার কাজ শুরু করে এ দু’টি এইচবিবি সড়কের সমস্ত ইট তুলে নিয়ে যান। সড়কের অর্ধেকের বেশী আরসিসি ঢালাই দেওয়া হলেও অদ্যাবধি অবশিষ্ট রাস্তার কাজ করা হয়নি। ইট তুলে ফেলায় সড়কের অবশিষ্ট অংশে গত তিনমাস ধরে গাড়ি চলাচল ও স্থানীয়দের চলাচলে দুর্ভোগ চরমে উঠেছে। কিছুদিন পর পর অল্পবৃষ্টির ফলে সড়কের মধ্যে কাঁদা জমে একাকার হয়ে যায়। সড়ক দিয়ে সাধারণ পথচারীদের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, সড়কের যে অংশে আরসিসি ঢালাই দেওয়া হয়েছে তাতে গুণগত মান বজায় রাখা হয়নি। আগের চেয়ে সড়ক নীচু করায় রাস্তার ঢালাইয়ের ওপর মাটি পড়েছে সনি হোস্টেলের সামনের অংশে। তাছাড়া সড়কের দু’পাশের অনেকাংশে সাইডে মাটি না দেওয়ায় সড়ক কাঠামো দুর্বল হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ঢালাইয়ের ক্ষেত্রে সঠিক পুরুত্ব দেওয়া হয়নি।

এ ব্যাপারে উত্তর পালং পাড়ার বাসিন্দা দিল মোহাম্মদ জানান, ঠিকাদার এলইজিইডির সিডিউল মতো কাজ করেনি। আরসিসি ঢালাইয়ের নীচে ভালোভাবে বালি দেওয়া হয়নি। ঢালাইয়ের পুরুত্বও বেশি নয়। যা সরেজমিন তদন্ত করলেই বুঝা যাবে।

১নং আলীকদম ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড মেম্বার আবু সালাম জানান, প্রকল্পের রাস্তাটি আমার ওয়ার্ডের। এলজিইডির ঠিকাদার কেন সংস্কারের নামে রাস্তার ইট তুলে নিয়ে গেল আমি জানি না। এতে পাড়ার এলাকার লোকজনের চলাচলে দুর্ভোগ হচ্ছে। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যানকে দিয়ে ঠিকাদারকে ফোন করিয়েছি। রাস্তা রক্ষার্থে গাইড ওয়াল নির্মাণ করলেও সেখানে মাটি দেওয়া হয়নি।

এ ব্যাপারে কাজ বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষে বিএনপি নেতা ঠিকাদার শাহাদত জানান, বৃষ্টির কারণে সঠিক সময়ে কাজ করা যায়নি। ‘এবছর তো এখানে তেমন বৃষ্টি হয়নি’ এমন প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে গিয়ে তিনি বলেন, আমরা শীঘ্রই কাজ শুরু করবো। ‘সঠিক সময়ে কাজ করতে না পারলে তিন মাস আগে থেকে কেন ইট তুলে নেওয়া হলো’ জানতে চাইলে ঠিকাদার শাহাদত কোন সদুত্তর দিতে না পেরে ‘হ্যালো হ্যালো আপনাকে ক্লিয়ার শোনা যাচ্ছে না, পরে কথা বলবো’ বলে কল কেটে দেন।

এ ব্যাপারে বান্দরবান এলইজিইডির সিনিয়র প্রকৌলশী জামাল উদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ঠিকাদারকে ডেকে কাজ শুরু করার নির্দেশ দিয়ছে। যদি না করে তাহলে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নিবো।

উপজেলা প্রকৌশলী আসিফ মাহমুদ, সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারকে মৌখিকভাবে কাজ শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: এলজিইডি, ঠিকাদার, প্রকল্প
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve + 11 =

আরও পড়ুন