পাহাড়ী ঢল ও বৃষ্টির পানিতে ভাঙ্গন অব্যাহত

উখিয়ায় খাল থেকে বালু উত্তোলন; হুমকির মুখে রোহিঙ্গা ক্যাম্প

fec-image

উখিয়ার থাইংখালী খালের বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করায় তাজনিমারখোলা রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন এলাকায় ভাঙ্গন ধরেছে। বিশেষ করে পাহাড়ী ঢল ও বৃষ্টির পানিতে এ ভাঙ্গনের মাত্রা আশংকাজনক ভাবে বেড়েছে। যার ফলে রোহিঙ্গা ক্যাম্পটি হুমকির মূখে পড়েছে। স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী ও রোহিঙ্গাদের অভিযোগ ড্রেজার মেশিন দিয়ে বেপরোয়া ভাবে বালু উত্তোলন করার কারনে খালের দু’পাশে ভেঙ্গে যাচ্ছে বৃষ্টি পানিতে। বাঁধ দেওয়া না হলেও এ ভাঙ্গন রোধ করা সম্ভব হবেনা।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, উখিয়ার থাইংখালী খালের পাড়ে ও পাহাড়ের পাদদেশে হাজার হাজার রোহিঙ্গা বসতি গড়ে উঠেছে। অবৈধ বালু উত্তোলনের ফলে থাইংখালী খালের উত্তরাংশে রোহিঙ্গা বসতি সংলগ্ন বিশাল এলাকা জুড়ে ব্যাপক ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করার জন্য প্রশাসন থাইংখালী খালের বেশ কয়েকবার অভিযান চালিয়ে বালু উত্তোলনের ড্রেজার মেশিন সহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি জব্ধ করলেও বালু উত্তোলনকারীরা তার মুহুর্তের জন্যও বন্ধ রাখেনি।

থাইংখালী খালের পাড়ে গড়ে উঠা তাজনিমারখোলা ক্যাম্প সংলগ্ন স্থানীয় বাসিন্দা শাহজাহান, শামসুল আলমসহ বেশ কয়েকজন গ্রামবাসির সাথে কথা বলে জানা গেছে, স্থানীয় একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট খাল থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন অব্যাহত রাখায় বৃষ্টির পানি ও পাহাড়ী ঢলে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে।

এছাড়াও বেপরোয়া বালু উত্তোলন অব্যাহত রাখায় খাল সংলগ্ন ফসলি জমি, বসতভিটা বিলীন হয়ে যাচ্ছে। তাজনিমারখোলা রোহিঙ্গা হেড মাঝি মোঃ আলী অভিযোগ করে জানান, স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি ক্যাম্প সংলগ্ন খাল থেকে বালু উত্তোলন করায় ক্যাম্প সংলগ্ন এলাকায় ভাঙ্গন ধরেছে। সে আরো জানান, বৃষ্টি থামলেই বালু উত্তোলন শুরু করবে উক্ত সিন্ডিকেট। এভাবে বালু উত্তোলন অব্যাহত থাকলে চলতি বর্ষায় পাহাড়ী ঢল ও খালের স্রোতে তাজনিমারখোলা ক্যাম্পের হাজারো বসতি বিলীন হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

স্থানীয় পালংখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির সাধারণ সম্পাদক এম গফুর উদ্দিন চৌধুরী জানান, খাল থেকে বালু উত্তোলন করায় খালের বিভিন্ন অংশে বিভিন্ন স্থাপনা ইতিপূর্বে বিলীন হয়ে গেছে। বিশেষ করে ফসলি জমি, বসত ভিটাসহ নানা প্রকার স্থাপনা তলিয়ে যাওয়ার ফলে খালের পাড়ে বসবাসরত অনেক পরিবার আশ্রয়হীন হয়ে পড়েছে।

উখিয়া সহকারি কমিশনার (ভূমি) ফখরুল ইসলাম জানান, অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনকারীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালানো হয়েছে। এখানেও এ ধরনের বালু উত্তোলন করে থাকলে অবশ্যই অভিযান চালানো হবে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: উখিয়া, থাইংখালী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen + seven =

আরও পড়ুন