কাপ্তাইয়ে আ’লীগ দলীয় মনোনয়ন পেতে ঢাকা-রাঙামাটি দৌঁড়ঝাঁপ, নিরব বিএনপি

fec-image

রাঙামাটি জেলার কাপ্তাই উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১১ নভেম্বর। ইতিমধ্যে নির্বাচন কমিশন কাপ্তাইয়ের ৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছেন।

কাপ্তাই উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা তানিয়া আক্তার জানান, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী কাপ্তাই উপজেলার ২নং রাইখালী ইউনিয়ন, ৩নং চিৎমরম ইউনিয়ন, ৪নং কাপ্তাই ইউনিয়ন ও ৫নং ওয়াগ্গা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১১ নভেম্বর। মেয়াদ শেষ না হওয়ায় উপজেলার ১নং চন্দ্রঘোনা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আরও ৬ মাস পর।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ইতিমধ্যে নির্বাচনকে সামনে রেখে কাপ্তাইয়ে মনোনয়ন পত্র বিতরণ শুরু হয়েছে। আগামী ১৭ অক্টোবর মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ এবং মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহরের শেষ তারিখ আগামী ২৬ অক্টোবর।

নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই সম্ভাব্য প্রার্থীদের দলীয় মনোনয়ন পেতে ঢাকা-রাঙামাটি দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়ে গেছে। বিশেষ করে নির্বাচনকে ঘিরে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ শিবিরে উচ্ছাস লক্ষ্য করা গেছে। শেষ পর্যন্ত দলের টিকিট নিশ্চিত করতে মরিয়া আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা। উপজেলার প্রতিটি গ্রাম, পাড়া, মহল্লা এবং চায়ের স্টলে এখন একটি কথা কে হচ্ছেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং মেম্বার প্রার্থী। তবে যথটা আওয়ামী লীগ শিবিরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে প্রাণচাঞ্চল্য দেখা যাচ্ছে, বিরোধী শিবিরে বিশেষ করে বিএনপিতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে তেমন উচ্ছাস লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। বিরোধী শিবিরে একেবারে নিরুত্তাপ অবস্থা বিরাজ করছে।

গত বছর কাপ্তাইয়ের ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলেও এবার দলটির কেউ অংশ নিচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন কাপ্তাই উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি লোকমান আহমেদ।

আসন্ন নির্বাচনে দলের নেতাকর্মীরা অংশ নিবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান, কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সিদ্ধান্ত মোতাবেক এবার তাদের দলের কেউ ইউপি নির্বাচনে অংশ নিবে না। দলের সমর্থক কেউ যদি নির্বাচনে অংশ নেয়, তাহলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অংসুই ছাইন চৌধুরী জানান, গত নির্বাচনে কাপ্তাই উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলের নৌকা প্রতীক নিয়ে ৩ জন প্রার্থী জয়ী হলেও এবার জনগণ ৫টি ইউনিয়নে বিপুল ভোটে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে জয়যুক্ত করবেন। তিনি আরো জানান, রাঙামাটি জেলার পাহাড়ি-বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা দীপংকর তালুকদার এমপি’র সুপারিশক্রমে দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দিবেন আমরা সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে তার পক্ষে কাজ করবো।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কাপ্তাইয়ের শিল্প বাণিজ্যিক এলাকা হিসাবে সু-পরিচিত ৪নং কাপ্তাই ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দৌঁড়ে এগিয়ে আছেন দুই দুইবার চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী বর্তমান চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আবদুল লতিফ। তিনি জানান, তার দায়িত্বকালীন সময়ে এলাকার দূর্গম এলাকাসহ সব জায়গায় শতভাগ বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা করা, রাস্তাঘাট, ব্রীজ, কালভার্ট, স্কুল, মসজিদ, মন্দির, শশ্মান ঘাট নির্মাণ, সোলার প্যানেলের মাধ্যমে দূর্গম এলাকা আলোকিত করেছি। আশা করছি, এবার দল যদি তাকে মনোনয়ন দেয়, তাহলে তিনি এলাকার অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করবেন।

তবে এই ইউনিয়ন হতে দলের মনোনয়ন চাইবেন দলের দায়িত্ব পালন করা হতে বিরত থাকা কাপ্তাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন পাটোয়ারী বাদল। তিনি জানান, আসন্ন ইউপি নির্বাচনে তিনি অংশ নেবেন, কারণ কাপ্তাই ইউনিয়ন পরিষদে হাজারো দুর্নীতি হয়েছে চলমান ১১ বছরে।

আর কাপ্তাই ইউনিয়নকে মদ, জুয়া, শোষন ও লুটেরাদের হাত থেকে বাঁচাতে নির্বাচনে তিনি অংশ নেবেন। এছাড়া এনামুল হক(মিলন,এম এ)তিনিও কাপ্তাই ৪নং ইউপি হতে নির্বাচন করবেন বলে জানান। তিনি জানান প্রয়াত তার বাবা এরশাদুর রহমান কন্ট্রাক্টর বৃহত্তর পার্বত্য চট্রগ্রামের আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠতা ও রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের আজীবন সদস্য ছিলেন কাপ্তাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৩বার সাবেক সভাপতি এবং ৪নং ইউনিয়ন পরিষদের ৫বার নির্বাচিত সাবেক ইউপি সদস্য ছিলেন।

শতবর্ষী চিৎমরম বৌদ্ধ বিহারের জন্য সমগ্র বাংলাদেশে সু-পরিচিত কাপ্তাইয়ের চিৎমরম ইউনিয়ন। বিগত দুইটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জেএসএস (সন্তু লারমা) সমর্থিত প্রার্থী খ‍্যাইসা অং মারমা এই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হন। জনগণের সর্মথন নিয়ে এবারও স্বতন্ত্র হিসাবে নির্বাচনে তিনি অংশ নিবেন বলে জানান। তারদল এবার কাউকে প্রার্থী দিচ্ছেনা বলে জানান।

এই ইউনিয়ন হতে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে যার নাম শুনা যাচ্ছে তিনি হলেন, চিৎমরম ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান যুবলীগের সভাপতি ওয়েশ্লিমং চৌধুরী।

পাহাড় পর্বত আর দূর্গম এলাকা হিসাবে পরিচিত ২নং রাইখালী ইউনিয়নে বিগত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের শক্তিশালী প্রার্থী মংক্যই মারমাকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হন জেএসএস সমর্থিত প্রার্থী সায়ামং মারমা। শারীরিক অসুস্থতার কারণে তিনি এবছর নির্বাচনে অংশ নিবে না বলে জানান। তবে এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে জোরেশোরে মাঠে নেমেছে তিন জন শক্তিশালী প্রার্থী। তারা হলেন, রাইখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইউসুফ তালুকদার, রাইখালী ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এনামুল হক এবং উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য থয়সাপ্রু চৌধুরী রুবেল।

তারা সকলেই জানান, দূর্গম রাইখালীর পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর আত্ম-সামাজিক উন্নয়ন, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, শিক্ষা প্রসারসহ নানা উন্নয়নে বিগত বছরগুলোতে তারা জনগণের পাশে ছিলেন। তাই জনগণের আশা আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটাতে তারা নির্বাচন করবেন।

কাপ্তাই উপজেলার ৫নং ওয়াগ্গা ইউনিয়নে গত ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতিক নিয়ে বিজয়ী হন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি চিরনজীত তনচংগ্যা দল তাকে মনোনয়ন দিলে এবারও নির্বাচন করবেন বলে জানান। এ ইউনিয়ন হতে মনোনয়ন পেতেপারে যারনাম শুনা যাচ্ছে তিনি হলেন কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সুজন তনচংগ্যা ধনা। ইতিমধ্যে তারা ঢাকা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ফরম জমা দিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আওয়ামী লীগ, কাপ্তাইয়ে, দৌড়ঝাঁপ
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four + seventeen =

আরও পড়ুন