কাপ্তাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গু নির্ণয়ে যন্ত্র নেই, নেই চিকিৎসকও

fec-image

কাপ্তাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গু নির্ণয়ের কোন যন্ত্র নেই , নেই কোন ডাক্তার। চিকিৎসা সেবা চলছে জোড়াতালি দিয়ে। সারা দেশে তথা ঢাকায় প্রতিদিন ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বৃদ্বি পাচ্ছে, পাশাপাশি অনেক রোগী এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে। এ রোগে দেশের প্রতি জেলা, উপজেলায় মানুষজনের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। কিন্তু রাঙ্গামাটি জেলা তথা কাপ্তাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ডাক্তারবিহীন চিকিৎসা সেবা দিয়ে চলছে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রতিনিয়ত ডাক্তারগন নিজ কর্মস্থলে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও একজন ডাক্তার ব্যতিত কোন চিকিৎসককে রবিবার (৪ আগষ্ঠ) হাসপাতালে দেখা যায়নি। এদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মাসুদ আহমেদ চৌধুরী এক সপ্তাহের জন্য ট্রেনিংয়ে চিন সফরে রয়েছে।

হাসপাতালে গিয়ে ডাঃ ফারুককে পাওয়া যায়। তার নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, ডেঙ্গু নির্ণয়ে আমাদের কোন যন্ত্র নেই। বা সরকারী ভাবে আমাদের কোন নির্ণয়কারী যন্ত্র দেয়া হয়নি।

এদিকে চন্দ্রঘোনা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী বেবী হঠাৎ হাসপাতাল পরিদর্শনে যায়। রবিবার (৪ আগষ্ঠ) সকাল সাড়ে এগারোটায় তিনি হাসপাতাল ঘুরে একজন চিকিৎসকে দেখতে পান। অন্যকোন ডাক্তার হাসপাতালে নেই। তিনি হাসপতাল ডাক্তারের নিকট জানতে চান ডেঙ্গু রোগের কোন চিকিৎসা আছে কীনা। জবাবে চিকিৎসক ফারুক জানান, ডেঙ্গু নির্ণয়ে আমাদের কোন যন্ত্র নেই। সরকারও আমাদের কোন যন্ত্র দেয়নি। তবে নির্ণয় করা যন্ত্র বা ( স্টিপ ) থাকলে আমরা নির্ণয় করে ডেঙ্গুর চিকিৎসা বা ডেঙ্গু আছে কিনা জানতে পারতাম।

এদিকে হাসপাতালে স্টাফ বা উপজেলা স্যানেটারী ইন্সপেক্টর মোঃ ইলিয়াছ বলেন, আমাদের চিকিৎসা সেবা আছে তবে সরকারী ভাবে ডেঙ্গু নির্ণয়ে কোন যন্ত্র নেই। ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী বেবী হাসপাতালের এ অবস্থা দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি নিয়মিত চিকিৎসক না থাকায় বিষয়টি আইশৃঙ্খলা সভায় উপস্থাপন করার কথা জানান। হাসপাতালের স্টাফ ও ডাক্তারদের জানান, অন্য কোন জায়গা থেকে বেসরকারিভাবে ডেঙ্গু রোগ নির্ণয়কারী স্টিপ যন্ত্র সংগ্রহ করুন আনুন টাকা যা লাগে আমি দিব। না হয় যে কোন সময় যে কেউ এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যেতে পারে।

ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মফিজুল হককে জানালেও তিনিও চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ডাক্তার নিজ কর্মস্থলে না থেকে বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসায় ব্যস্ত থাকার কথা জানান। তিনি বর্তমান পরিস্থিতে চিকিৎসকদের অনুপস্থিতি এবং অবহেলার ব্যাপারে আগামি মাসিক সভায় বিষয়টি উপস্থাপন করার কথা জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: কাপ্তাই, ডেঙ্গু, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × three =

আরও পড়ুন