‘পার্বত্য অধিকার ফোরাম বিলুপ্ত, কোন নেতা বহিস্কার নন’

fec-image

পার্বত্য চট্টগ্রামে বর্তমানে বাঙালিদের কোন সংগঠন নেই, পাহাড়ে সকল বাঙালি সংগঠনগুলো এক ছাতার নিচে এসে বৃহৎ স্বার্থে সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে একটি সংগঠন ঘোষণা করেছে। সংগঠনটির নাম পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ। গত ৫ ডিসেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবে ও ৭ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে পার্বত্য চট্টগ্রামের সকল বাঙালি সংগঠনকে বিলুপ্ত করা হয়েছে। এই অবস্থায় অন্যকোন সংগঠনের কোন কার্যক্রম পাহাড়ে নেই। এখন কেউ কাউকে বহিস্কার বা কাউকে আবিস্কার করার এখতিয়ারও কারো নেই।

রোববার (৮ ডিসেম্বর) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ সব কথা জানিয়েছেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের সদস্য ও পার্বত্য অধিকার ফোরামের সাবেক সদস্য সচিব, মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আনিসুজ্জামান ডালিম।

বিজ্ঞপ্তিতে তিনি বলেন, পার্বত্য অধিকার ফোরামের নামে কেউ কেউ সংগঠনের সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মাসুম রানাকে বহিস্কার ও রাঙামাটি জেলার দায়িত্বশীল হাবিবকে বহিস্কার করার দুঃসাহস দেখিয়েছে। যা পার্বত্য চট্টগ্রামের আপামর বাঙালি জাতির জন্য দুঃখজনক। পাহাড়ের নির্যাতিত নিপীড়িত মানুষের অধিকার আদায়ে সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই সংগঠন গঠন করে। দেশ ও জাতির কথা চিন্তা করে বৃহৎ স্বার্থে এই সংগঠন গঠন করার পর হতেই একটি কুচক্রী মহল যারা ব্যক্তি স্বার্থে পাহাড়ে আঞ্চলিক রাজনীতি করেছে, নিজেরা পদ বিক্রি করে জায়গা জমির মালিক হয়েছে, সংগঠনের নাম দিয়ে ব্যাপক চাঁদাবাজি করেছে তারাই মূলত চাচ্ছে না ঐক্য পক্রিয়া হোক, বাঙালিরা এক হোক। তারা এই সুন্দর উদ্যােগের বিরোধীতা করে ঐক্য প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্থ করতে চাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, পার্বত্য অধিকার ফোরামের মূল কর্ণধার পরিচয় দিয়ে ঐক্য প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত বিভিন্ন নেতাকর্মীদের হুমকি ও ভয় ভীতি দেখাচ্ছে যাতে ঐক্য প্রক্রিয়ার কার্যক্রমে অংশগ্রহণ না করে। কিন্তু জাতির বৃহৎ স্বার্থ চিন্তা করে সংকীর্ণ মন মানষিকতার উর্দ্ধে উঠে যে সকল নেতাকর্মী কাজ করে যাচ্ছে ঐক্য প্রক্রিয়ার সাথে তাদের নানাভাবে ভূয়া অভিযোগ দিয়ে তাদেরকে সামাজিক ভাবে হেয় করছে।

এ সময় পার্বত্য অধিকার ফোরামের নাম দিয়ে সংবাদ মাধ্যমে কেউ কোন প্রেস বিজ্ঞপ্তি পাঠালে সংবাদপত্রে না ছাপানোর জন্য অনুরোধ করেন তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: পার্বত্য চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

six + 9 =

আরও পড়ুন