রামুতে অপমৃত্যুর আতঙ্ক : এক বছরে ৩৬ জনের মৃত্যু

opo
খালেদ হোসেন টাপু, রামু : কক্সবাজারের রামুতে গত এক বছরে ৩৬ জনের অপমৃত্যু হয়েছে। এত মানুষের অপমৃত্যুতে এলাকার মানুষের মধ্যে অজানা আতঙ্ক বিরাজ করছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়- আলোচিত খুন, যৌতুক, বজ্রপাত, অপহরণ, পারিবারিক বিরোধ, নদী ও পুকুরে ডুবে, বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে, জমি সংক্রান্ত বিরোধ, ডাকাতের হাতে, সড়ক দুর্ঘটনায়, হাতির আক্রমণে এসব মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া রামুর বিভিন্ন স্থানে অজ্ঞাত পরিচয়ের একাধিক ব্যক্তির লাশ পাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। তবে ২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত রামুতে কোন ধরনের রাজনৈতিক সহিংসতার ঘটনা ঘটেনি।

অনুসন্ধানে পাওয়া গেছে, ২০১৩ সালের ১৯ জানুয়ারি রামু উপজেলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের চাইল্যাতলি এলাকায় সন্ত্রাসীদের হামলায় ছৈয়দ (২৪), ৫ ফেব্রুয়ারি রামুর কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের ফাক্রিকাটা এলাকায় সমিতির টাকাকে কেন্দ্র করে মারধরে মৃত নুর আহমদের পুত্র নুরুল আলম (৪১), ১৪ ফেব্র“য়ারি সন্ত্রাসীদের হাতে রামু জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের পূর্বপাড়ার বাসিন্দা ওসমান সরওয়ারের মৃত্যু হয়।

১৯ ফেব্র“য়ারি রামুতে বজ্রপাতে চিতামূরা গ্রামের হাছন আলির শিশু কন্যা রুজিনা আক্তার (৭) ও কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের নতুন তিতার পাড়া গ্রামের আবদুল হাকিমের শিশু কন্যা রকিমা খাতুন বাবুনি (৬) নিহত হয়। ১৯ ফেব্র“য়ারি উপজেলার চাকমারকুল ইউনিয়নের পশ্চিম পাড়ার সৌদি প্রবাসী ফরিদুল আলমের পুত্র জসিম উদ্দিন ( ২৫),  ২১ ফেব্র“য়ারি রাজারকুল ইউনিয়নের কাঠালিয়া পাড়া এলাকার মৃত ছিদ্দিক আহাম্মদের পুত্র অলি আহাম্মদ ওরফে শাইরা (৬০) মৃত্যু হয়।

 ৫ মার্চ  দুর্বৃত্তদের হামলায় রামুর রশিদনগর উত্তর কাহাতিয়াপাড়া বাসিন্দা নুরুল আমিন, ১৯ এপ্রিল রামু উপজেলার রশিদ নগরে যৌতুকের দাবী মেটাতে না পারায় স্বামীর হাতে এক সন্তানের জননী ও চার মাসের অন্তঃস্বত্তা স্ত্রী রাশেদা বেগম (২৫) খুন  হয় ।

২৫ মে জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের হাসপাতাল এলাকার কুলালপাড়া এলাকায় রাবার গাছে ঝুলানো অবস্থায় কিশোরী প্রিয়াংকা রুদ্র (১৬) এর মৃত লাশ উদ্ধার করা হয়, ৩১ মে রামুর ঈদগড়ে বসবাসকারী সন্ত্রাসী রোহিঙ্গারা স্থানীয় কোনারপাড়া গ্রামের আবু ছৈয়দের ছেলে নুরুল আজিমকে অপহরণের পরে খুন করা হয়, ৩ জুন  কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের রামু চাকমরাকুল এলাকা থেকে রোববার দিবাগত রাতে বস্তাবন্দী অজ্ঞাত পরিচয়ের এক সুন্দরী কিশোরীর (১৬) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

 ১৪ জুন সড়ক দুর্ঘটনায় মহিবুল্লাহর শিশুপুত্র আবু বকর ছিদ্দিক (৯) এর মৃত্যু, ২৫ জুন  রামু রশিদ নগরে ডাম্পারের ধাক্কায় বাই সাইকেল চালক মামুন ও  ২৭ জুন  জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের নন্দাখালী মুরা পারা এলাকায় লাঠির আঘাতে বাহাদুর নিহত।

২৯ জুন  ঈদগড়ে বিদ্যুৎúৃষ্ট হয়ে বিরেন্দ্র দে (৫০) নামের এক কামার ও ১৫ জুলাই রামুতে বাড়ির পাশে নদীতে ভেসে গিয়ে উপজেলার ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের খোন্দকার পাড়ার মাহিয়া আকতার (৯) ও আবদুর রহিমের মেয়ে নাঈমা আকতার (৮) এর মৃত্যু।

২৮ জুলাই উপজেলার রাজারকুল ইউনিয়নের দেয়াংপাড়ায় ডাকাতের গুলিতে নুরুল আমিন (৫০) নিহত হয়। ২৯ জুলাই দুষ্কৃতকারীর হাতের গুলিবিদ্ধ হয়ে ঈদগড় পশ্চিম হাছনা কাটা এলাকার কবির আহাম্মদের স্ত্রী লায়লা বেগম (৬২) খুন হয়।

২৯ জুলাই খুনিয়াপালং ইউনিয়নের থোয়াইংগ্যাকাটা ঘুইট্টাবনিয়া স্বামীর হাতে গৃহবধূ জলিয়া আকতার পারভিন (২৫) নিহত হয়, ২০ আগস্ট কচ্ছপিয়ায় পানিতে পড়ে বড় জাংছড়ি গ্রামের ফুরুক আহাম্মদের শিশু কন্যা মীমের মৃত্যু হয়, ২১ অক্টোবর জোয়ারিয়ানলা চা বাগান এলাকা থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়।

২০ নভেম্বর রামু উপজেলার ঈদগড় ইউনিয়নের শিয়া পাড়ার মৃত নজির আহমদের মেয়ে জন্নাত বেগম বিয়ে সংক্রান্ত বিষয়ে অভিমানে আত্মহত্যা করে। ২৮ নভেম্বর দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের চ্যাইন্দা এলাকার সিরাজুল হকের কন্যা রেহেনা আকতার (১৮) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ১ নভেম্বর রামু হাসপাতাল গেইট এলাকা সড়ক দুর্ঘটনায় শফিউল আলম (৩৫) নিহত।  

৫ নভম্বর রামু উপজেলার ফতেখাঁরকুলের মল্লিক পাড়ায় গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে স্ত্রী শিল্পী মল্লিক (৩০)-কে খুন করে তার স্বামী, ৪ ডিসেম্বর উত্তর মিঠাছড়ি গ্রামের চৌধুরী পাড়া এলাকায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে শামসুল আলম (২৩), ১৪ ডিসেম্বর রামু উপজেলার পর্যটন কেন্দ্রর হিমছড়ি মেরিন ড্রাইভ সড়কের সেনাক্যাম্প এলাকা থেকে রিদোয়ান রহমান (২৫) নামে এক যুবকের গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

১৩ ডিসেম্বর ঈদগড়-রাঙ্গাঝিরি সড়কে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় মো. তারেক (১২) নিহত, ১৯ ডিসেম্বর কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের ভিলিজারপাড়া এলাকায় লাঠির আঘাতে নবী হোছেন (৪৫) খুন হয় । ২৩ ডিসেম্বর রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের উত্তর মিঠাছড়ি এলাকা থেকে ইম্পেল বড়ুয়ার (২৫) লাশ উদ্ধার, ২৫ ডিসেম্বর রামুতে ব্যাটারি চালিত অটোরিকশার চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে উপজেলার ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের মণ্ডলপাড়ার হাজী আলী হোসেনের মেয়ে ও মেরংলোয়া রহমানিয়া মাদ্রসার অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী ইয়াছমিন আক্তার (১৪) নামের এক কিশোরীর মৃত্যু হয়। রামু চৌমুহনীতে একটি পরিত্যক্ত পেট্রোল পাম্পের কাছ থেকে পরিবহন শ্রমিকের ঝন্টু বিশ্বাসের (৪০) ঝুলন্ত  লাশ উদ্ধার করা হয়।

রামু উপজেলার কচ্ছপিয়ায় বন্য হাতির আক্রমণে কৃষক মো. জোবাইর (২৫) মৃত্যু ঘটে। ৩০ ডিসেম্বর কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের রামুর জোয়ারিয়ানালা নতুন মুরা পাড়া এলাকায় কক্সবাজারমুখী একটি মাইক্রো বাসের চাপায় আনছুর আলী ( ৫২)  নিহত।    

এসব অপমৃত্যুর কারণে রামু উপজেলার মানুষের মধ্যে গতবছরটা বিষাদময় হিসেবেই কেটেছে। অনেকের মধ্যে এখনও রয়েগেছে অজানা আতঙ্ক।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: অনুসন্ধানী রিপোর্ট, অপমৃত্যু, রামু
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

12 − 5 =

আরও পড়ুন