মানিকছড়িতে ইউপি নির্বাচনের হাওয়া : তিন রাজার রাজ্য দখলে মরিয়া নতুনরা

fec-image

দেশব্যাপী চলছে পৌরসভা ও সিটি নির্বাচনের আমেজ। এটির আমেজ শেষ হতে না হতে আগামী ২২ মার্চ থেকে দেশব্যাপী ৬ ধাপে শুরু হবে ইউপি নির্বাচন-২১। ফলে খাগড়াছড়ি’র মানিকছড়ি উপজেলার চার ইউপি’র ৩টিতে নির্বাচনী হাওয়া বইতে শুরু করেছে।

বর্তমান ক্ষমতাধর তিন রাজার (চেয়ারম্যান) রাজ্য দখলে নিতে ইতোমধ্যে নতুন নতুন সম্ভাব্য প্রার্থীরা জেলা,উপজেলার দলীয় শীর্ষ নেতাদের আর্শিবাদ পেতে মরিয়া উঠেছে। তবে শেষ পর্যন্ত নির্বাচনী প্রার্থীতার দৌঁড়ে বর্তমান চেয়ারম্যানদের পরাস্ত করতে পারবে কী নতুন প্রত্যাশিত প্রার্থীরা? এ নিয়ে তৃণমূলে চলছে চুলছেঁড়া বিশ্লেষণ।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচন কমিশন বর্তমানে দেশব্যাপী পৌরসভা নির্বাচন করছে। এরপরই শুরু হবে সিটি নির্বাচন। এই দুই জনবান্ধব প্রতিষ্ঠানের নির্বাচন শেষ হতে না হতেই আগামী ২২ মার্চ- ৪ জুন ছয় ধাপে দেশব্যাপী ইউপি নির্বাচন করার চিন্তা করছে নির্বাচন কমিশন। ফলে তৃণমূলে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী আমেজ বইতে শুরু করেছে।

এ ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই পার্বত্য খাগড়াছড়ি জেলার শান্তিপ্রিয় জনপদ মানিকছড়ি উপজেলাও।

উপজেলার চার ইউনিয়নের মধ্যে ৩টিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১৬ সালের ২৩ এপ্রিল। সীমানা জটিলতায় অপর ইউপি’র(যোগ্যাছোলা) নির্বাচন স্থগিত হয়ে দু’বছর অনুষ্ঠিত হয়। সে অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন ঘোষিত ২২ মার্চ- ৪ জুন সময়ের ছয় ধাপের যে কোন ধাপে নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে জনপদে আলোচনা শুরু হয়েছে। বর্তমানে দায়িত্বরত চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের বিগত কর্মকাণ্ড নিয়ে জনমত, জনসমর্থন মূল্যায়ণ করছেন ক্ষমতাশীন দলের(আওয়ামী লীগ) শীর্ষ নেতারা।

আসন্ন নির্বাচনে মানিকছড়ির ১ নং মানিকছড়ি ইউপি, ২ নং বাটনাতলী ইউপি ও ৪ নং তিনটহরী ইউপিতে এক সাথে নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ ২০১৬ সালের ২৩ এপ্রিল রোজ শনিবার এই ৩ ইউপিতে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ব্যাপক জনসমর্থন নিয়ে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ৩ শীর্ষ নেতা মোঃ শফিকুর রহমান ফারুক (১ নং মানিকছড়ি ইউপি), মোঃ শহীদুল ইসলাম মোহন (২ নং বাটনাতলী ইউপি) ও মোঃ রফিকুল ইসলাম বাবুল(৪ নং তিনটহরী ইউপি)।

দু’বছর দায়িত্ব পালনের পর মরণব্যাধি ক্যান্সারে অকালে প্রাণ হারায় মোঃ রফিকুল ইসলাম বাবুল। ফলে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন প্যানেল চেয়ারম্যান, উপজেলা যুবলীগ নেতা মো. বাহার মিয়া (বি.কম)। পরে শুন্য আসনে নির্বাচন ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন। সেখানে নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হন এই জনপদে একসময়কার জননন্দিত ইউপি সদস্য মরহুম মোঃ ইউছুপ মেম্বারের জ্যেষ্ঠপুত্র মোঃ আবুল কালাম আজাদ।

দায়িত্বকালীন এই দীর্ঘ সময়ে বর্তমান চেয়ারম্যানদের মধ্যে কেউই এখন পর্যন্ত বির্তকিত কোন কর্মকাণ্ডে জড়ায়নি। ফলে এই তিন রাজ্য শাসকের(রাজা) রাজ্যে নতুন কেউ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হলে তাকে ব্যাপক জনসমর্থিত ও ভাগ্যবান হতে হবে। তাই শাসকদের চেয়ারে বসার স্বপ্নে নতুনভাবে চিন্তাভাবনা করছে অনেক উদীয়মান , উচ্চশিক্ষিত ও স্বচ্ছ মনের অধিকারী অনেকে।

বর্তমানে দায়িত্বরত চেয়ারম্যানদের পাশাপাশি নতুনভাবে যারা মনোনয়ন পেতে তৃণমূল উপজেলায় লবিং,তদবির শুরু করেছেন তাদের মধ্যে ১ নং মানিকছড়ি ইউপিতে নতুনভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছে উপজেলার প্রথম কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (স্নাতকোত্তর) সাবেক ছাত্রনেতা, সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ আকতার হোসেন ভূইঁয়া।

২নং বাটনাতলী ইউপিতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোঃ আবদুল রহিম, প্রয়াত হেডম্যান আতাঅং চৌধুলীর দ্বিতীয় পুত্র মংসাপ্রু চৌধুরী( স্বতন্ত্র) । ৪নং তিনটহরীতে উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউসিসি লিঃ চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেন, সাবেক ভারপ্রাপ্ত ও প্যানেল চেয়ারম্যান এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোঃ বাহার মিয়া (বি.কম)। আপাতত এই কয়েকজনকেই আওয়ামী লীগ পরিবারের পক্ষে মনোনয়ন পেতে মরিয়া উঠতে দেখা যাচ্ছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ জয়নাল আবেদীন বলেন, তৃণমূলে জনসমর্থন এবং বিগত সময়ে দল ও সাধারণ মানুষের সাথে সম্পৃক্ত ব্যক্তিকেই আসন্ন ইউপি নির্বাচনে দল মনোনয়ন দেবে।

অন্যদিকে দেশে চলমান পৌর ও সিটি নির্বাচনে অংশ নেয়া বিএনপি’র সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় থেকে গোপনে গোপনে তিন ইউপিতেই বিএনপি নেতারা প্রার্থী মনোনয়ন দিতে ধীরে ধীরে কাজ শুরু করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন দলের একাধিক শীর্ষ নেতা।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আওয়ামী লীগ, নির্বাচন, বিএনপি
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nine + 13 =

আরও পড়ুন