মাটিরাঙ্গা উপজেলা আ’লীগের কাউন্সিলকে ঘিরে সরব মাঠের রাজনীতি

fec-image

পার্বত্য খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিলকে সামনে রেখে দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। সরব হয়ে উঠেছে ঝিমিয়ে পড়া রাজনীতির ময়দান। সভাপতি ও সম্পাদক পদে ২-২ এ লড়াই জমে উঠেছে আওয়ামী শিবিরে। সম্ভাব্য পদ প্রত্যাশীদের পাশাপাশি কাউন্সিলকে সফল করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি।

বর্তমান কমিটির মেয়াদোত্তীর্ন হওয়ার চার বছর পরে আগামী ১২ অক্টোবর মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের কাঙ্খিত কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি কাউন্সিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অন্যতম সদস্য এমএম জাহাঙ্গীর আলম।

আগামী দিনে কে হবেন দলের কান্ডারী.. ? সভাপতি-সম্পাদক পদে কে হাসবে বিজয়ের হাসি..? তা নিয়ে চায়ের দোকান থেকে শুরু করে অফিস পাড়া সর্বত্র আলোচনা ঝড় তুলেছে। দলের সম্ভাব্য পদ প্রত্যাশীদের পাশাপাশি তাদের সমর্থকরা জনমত সৃষ্টি করতে অবিরাম ছুটছেন কাউন্সিলরদের দুয়ারে।

সভাপতি পদে তিন জন প্রতিদ্বন্ধি থাকলেও কাউন্সিলের চারদিন আগে মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি ও মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো. শামছুল হক মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম হুমায়ুন মোরশেদ খান-কে সমর্থন করে প্রতিদ্বন্ধিতা থেকে সরে দাঁড়ালে সভাপতি পদে দুই জন প্রার্থীকে ঘিরে নেতাকর্মী আর কাউন্সিলরদের তৎপরতা চোখে পড়ছে। শেষ মুহুর্তে এসে মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম হুমায়ুন মোরশেদ খান এবং মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন।

অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সুবাস চাকমার সাথে মুল প্রতিদ্বন্ধিতায় রয়েছেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান যুগ্মসম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলাম। এছাড়াও মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. আমান উল্যাহ ভুইয়া, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সদুঅং মারমা ও সাইফ আল ইমরান সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় রয়েছেন।

জানা গেছে, সর্বশেষ ২০১২ সালের ৬ অক্টোবর মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলনে মো. শামছুল হক বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় সভাপতি নির্বাচিত হলেও কাউন্সিলরদের প্রত্যক্ষ ভোটে সুবাস চাকমা সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। আরো চার বছর আগে মেয়াদোত্তীর্ণ হলেও নানা অজুহাতে কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়নি।

তবে এবারের কাউন্সিলে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে শক্ত প্রতিদ্বন্ধিতার আভাস পাওয়া যাচ্ছে। শেষ পর্যন্ত কারা আসছেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব সেদিকে তাকিয়ে আছে তৃণমুলের নেতাকর্মীরা।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আওয়ামী লীগ, কাউন্সিল, সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two + 9 =

আরও পড়ুন