রামগড়ে শিবির সাবেক সভাপতির নেতৃত্বে হামলার অভিযোগে আ.লীগ নেতার সংবাদ সম্মেলন

fec-image

রামগড় পৌরসভার মহামুনি এলাকায় ইসলামী ছাত্র শিবিরের সাবেক সভাপতি বেলাল হোসাইনের নেতৃত্বে হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা ও পৌর কাউন্সিলর মো. শামিমসহ পাঁচজনকে আহত করার অভিযোগ করা হয়েছে। রামগড় প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করা হয়।

বুধবার(১ জুলাই) সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য দেন রামগড় উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ও রামগড় পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শামীম।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আভিযোগ করে বলেন, রামগড় উপজেলা ইসলামী ছাত্র শিবিরের সাবেক সভাপতি বেলাল হোসাইনের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী বুধবার দুপুরে মহামুনি এলাকায় তাদের ওপর হামলা চালিয়ে কয়েকজনকে আহত করেছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উপস্থিতিতে এ হামলা চালানো হয়।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, মহামুনি এলাকায় তাদের রেকর্ডীয় ভূমি নিয়ে ছাত্র শিবিরের সাবেক সভাপতি বেলাল হোসাইনের ভাগিনাদের সাথে বিরোধ সৃষ্টি হয়। বিরোধের মীমাংসায় বুধবার (১ জুলাই) রামগড় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নোটিশ অনুযায়ী বেলা ১২ টার দিকে মহামুনিতে উপস্থিত হন তারা।

উপজেেলা নির্বাহী অফিসারের উপস্থিতিতে উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ারসহ অন্যান্যরা ভূমি পরিমাপ পরিচিহ্ন করার কাজ শুরু করলে এক পর্যায়ে শিবিরের সাবেক সভাপতি বেলালের লোকজন আকস্মিকভাবে তাদের ওপর হামলা চালায়। হামলায় তারা ধারালো দা, ছেনি, লাঠি-সোটা ব্যবহার করে।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাদের নিবৃত করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। তাদের এ পরিকল্পিত হামলায় মো. শামীম, তার বড় ভাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. নুরুন্নবী(৫৫), ৬ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি মো. দাউদুল ইসলাম (২৮), উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. ইব্রাহিম (৪০), ৬ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি মো. হানিফ আহত হন।

এদের মধ্যে নুরুন্নবীর জখম গুরুতর। হামলাকারীরা তাদের কাছ থেকে টাকা পয়সাও ছিনিয়ে নেয়।

মো. শামীম বলেন, এ ব্যাপারে তারা থানায় একটি এজাহার দাখিল করেছেন। আওয়ামী লীগ নেতা ও পৌর কাউন্সিলর মো. শামীম শিবিরের সাবেক সভাপতি বেলালসহ অন্যান্য আসামীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. ইব্রাহিম, পৌর যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল মান্নান, ৬নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি দাউদুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে রামগড় উপজেলা নির্বাহী অফিসার আ.ন.ম বদরুদ্দোজা বলেন, বিরোধীয় ভূমি পরিমাপ পরিচিহ্ন করে সমস্যার সমাধানের জন্য তিনি সার্ভেয়ারসহ ভূমি অফিসের স্টাফদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যান।

এ সময় দুপক্ষ প্রথমে কথাকাটাকাটিতে লিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে তারা একে অন্যের ওপর হামলা চালায়। এতে কয়েকজন আহত হয। থানায় ফোন করে পুলিশ এনে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মাদ শামসুজ্জামান বলেন, ভূমি বিরোধকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। এ ঘটনায় দু‘পক্ষ থেকে থানায় দুটি এজাহার দাখিল করেছেন। তদন্ত করে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আওয়ামী লীগ, ইসলামী ছাত্র শিবির, প্রেস ক্লাব
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × four =

আরও পড়ুন